রাত পোহালেই ভোট

মে ১৫, ২০১৮, ১:১০ পূর্বাহ্ণ

রাত পোহালেই নগরপিতা নির্বাচন করতে ভোট দেবেন খুলনা নগরবাসী। সিটি করপোরেশন নির্বাচনের সব প্রস্তুতি ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। খুলনায় বিজয়ের হাসি কে হাসবেন তা মঙ্গলবারই জানা যাবে।  সকাল আটটায় ভোটগ্রহণ শুরু হবে। বিরতিহীনভাবে ভোটগ্রহণ চলবে বিকাল চারটা পর্যন্ত। ভোটগ্রহণের সব মালামাল সোমবার সন্ধ্যার মধ্যেই কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছে গেছে। পাশাপাশি ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণের জন্য দুটি কেন্দ্রে মহড়াও হয়েছে।শহরের সোনাডাঙ্গা এলাকার বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে নির্বাচনী ফলাফল সংগ্রহ ও ঘোষণা কেন্দ্র থেকে দুপুরে ভোটের সামগ্রী বিতরণ করা হয়। এ সময় রিটার্নিং কর্মকর্তা ইউনুছ আলী সাংবাদিকদের বলেন, ইতোমধ্যে আমাদের সার্বিক প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। নির্বাচনী মালামালও কেন্দ্রে কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। আমাদের ডিপ্লয়মেন্ট প্ল্যান অনুযায়ী পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাবসহ সবাই মাঠ পর্যায়ে রয়েছেন। আমাদের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটরা স্ব স্ব অধিক্ষেত্রে দায়িত্ব পালন করছেন।——————————————————–
আরও পড়ুন : নিহতদের পরিবারকে ৩ লাখ টাকা-চাকরি দেবে কেএসআরএম
——————————————————–এদিকে নির্বাচনী পরিবেশ সুষ্ঠু রাখতে টহল দিচ্ছেন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। তাছাড়া খুলনা মহানগরীতে অবস্থানকারী বহিরাগতদের বের করতে আজ সোমবার রাতে সব হোটেলে অভিযান চালানো হবে।এ ব্যাপারে ইউনুস আলী জানান, নির্বাচন কমিশন থেকে বিকেলেই বহিরাগতদের চলে যাওয়ার নির্দেশ দিয়ে মাইকিং করা হয়েছে। এরপরও কেউ রয়ে গেলে তাদের বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।দলীয় প্রতীকের এ নির্বাচনে মেয়র পদে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা তালুকদার আব্দুল খালেকের সঙ্গে মূল প্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষের প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু। এছাড়া লাঙ্গল প্রতীকে জাতীয় পার্টির এস এম শফিকুর রহমান মুশফিক, কাস্তে প্রতীকে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) মিজানুর রহমান বাবু ও হাতপাখা প্রতীকে ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী মুজ্জাম্মিল হক মেয়র পদে লড়ছেন।রিটার্নিং কর্মকর্তা ভোটার, প্রার্থী ও সমর্থকদের উদ্দেশে বলেন, নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে। শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহণের সকল আয়োজন সম্পন্ন করা হয়েছে। আপনারা সবাই ভোটকেন্দ্রে ভোট দিতে আসবেন এবং নির্ভয়ে শঙ্কামুক্ত পরিবেশে ভোটাধিকার প্রয়োগ করে নির্বাচন অনুষ্ঠানে সহায়তা করবেন।ইউনুছ আলী আরও বলেন, ২৮৯টি ভোট কেন্দ্র রয়েছে। এখানে ২৩৪টি কেন্দ্র আমরা গুরুত্বপূর্ণ (ঝুঁকিপূর্ণ) হিসাবে বিবেচনা করছি এবং ৫৫টি কেন্দ্র সাধারণ। গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ২৪জন পুলিশ ও আনসার সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। সাধারণ কেন্দ্রে থাকবেন ২২ জন করে। প্রিজাইডিং অফিসাররা ও অন্যান্য ফোর্স রাতে কেন্দ্রেই থাকবেন। এর বাইরে ভিজিলেন্স টিম রয়েছে, তারা টহল দেবে।নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মোট ভোটার রয়েছেন ৪ লাখ ৯৩ হাজার ৯৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ২ লাখ ৪৮ হাজার ৯৮৬ ও নারী ২ লাখ ৪৪ হাজার ১০৭ জন। ভোটকক্ষ ১ হাজার ১৭৮টি। ভোট কেন্দ্র ও ভোট কক্ষে দায়িত্ব পালন করবেন ৪ হাজার ৯৭২ জন কর্মকর্তা।এর মধ্যে প্রিসাইডিং অফিসার রয়েছেন ২৮৯ জন, সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার ১ হাজার ৫৬১ জন এবং পোলিং এজেন্ট রয়েছেন ৩ হাজার ১২২ জন।এ নির্বাচনে ২৮৯টি কেন্দ্রের মধ্যে স্থায়ী ভোট কক্ষ রয়েছে ১ হাজার ৫৬১টি। আর অস্থায়ী ভোট কক্ষ রয়েছে ৫৫টি।
rtv

পড়া হয়েছে ১৪৪ বার

( বি:দ্রঃ আপনভূবন ডটকম -এ প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও, কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। কপিরাইট © সকল সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আপনভূবন ডটকম )

আপনার ফেসবুক একাউন্ট ব্যবহার করে মতামত প্রদান করতে পারেনঃ