আজ ৫ মার্চ, গ্রেগরীয় বর্ষপঞ্জী অনুসারে বছরের ৬৪ তম (অধিবর্ষে ৬৫ তম) দিন ।

মার্চ ৫, ২০১৬, ১১:১২ পূর্বাহ্ণ
১৯১৮ সালের এ দিনে মস্কোকে রাশিয়ার রাজধানী করা হয়।
ঘটনাবলীঃ

১৮২৭ সালের এই দিনে ইতালীর বিখ্যাত পদার্থ বিজ্ঞানী আলেসাঁন্দ্রো ভোল্টার ৮২ বছর বয়সে মারা যান। বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনার পাশাপাশি তিনি গবেষণা ও পরীক্ষা নীরিক্ষা চালিয়ে যেতেন। বিদ্যুৎ পরিমাপক যন্ত্র ইলেক্ট্রোমিটার ভোল্টারই আবিষ্কার। তিনি ইলেকট্রিক পাইল বা বিদ্যুৎ উৎপাদনের যন্ত্র আবিষ্কার করেছেন। এ যন্ত্রকে পাইল ভোল্টা বলা হয়। বর্তমানে বিদ্যুৎ পরিমাপের একক বা ইউনিটকেও ভোল্টা বলা হয়ে থাকে।

১৮২৭ সালের এই দিনে বিখ্যাত ফরাসী গণিতবিদ পিয়েরে লাপ্লাস মারা যান। তার জন্ম হয়েছিল ১৭৪৯ সালে এবং পড়াশোনা শেষ করার পর গণিতের অধ্যাপনায় নিয়োজিত হন। লাপ্লাস জীবনের অধিকাংশ সময় ব্যয় করেছেন গণিত ও জ্যোতির্বিদ্যা সংক্রান্ত গবেষণায়। পৃথিবী কয়েক মিলিয়ন বছর আগে সূর্য থেকে পৃথক হয়েছে এবং প্রথম দিকে তা উত্তপ্ত থাকার পর ধীরে ধীরে ঠান্ডা ও শক্ত হয়ে এসেছে বলে তিনি মনে করতেন। বিশ্বের তারকারাজির গঠন বা প্রদর্শন এবং সম্ভাব্যতা যাচাইয়ে অনুমান শীর্ষক দুটি বই লাপ্লাসের উল্লেখযোগ্য অবদান।

১৯৫৩ সালের এই দিনে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের নেতা ও স্বৈরশাসক জোসেফ স্ট্যালিন ৭৪ বছর বয়সে মারা যান। তিনি ১৮৭৯ সালে জর্জিয়ায় জন্ম গ্রহণ করেন এবং কমিউনিজম সম্পর্কে জানার পর বলশেভিকদের সাথে যুক্ত হন। রাশিয়ার জার শাসকদের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক তৎপরতার কারণে ১৯১৩ সালে স্ট্যালিনকে সাইবেরিয়ায় নির্বাসন দেয়া হয় এবং ১৯১৭ সালের সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব বিজয়ী হবার আগ পর্যন্ত তাকে সাইবেরিয়ায় নির্বাসিত অবস্থায় থাকতে হয়েছে। লেনিনের শাসনামলে স্ট্যালিন পদস্থ কর্মকর্তা হন এবং লেনিনের মৃত্যুর পর কামানভ ও জিনুভিয়েভের সাথে সোভিয়েত ইউনিয়ন পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তিনি ১৯২৭ সালে কমিউনিষ্ট পার্টির অবিসম্বাদিত নেতা ট্রটস্কিসহ তার অন্যান্য প্রতিদ্বন্দ্বিদের নৃশংসভাবে নির্মূল করেন। দলের বাইরে থাকা প্রতিদ্বন্দ্বীরাও এই শুদ্ধি অভিযান থেকে রেহাই পায় নি। স্ট্যালিন দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের সময় রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ও সেনা প্রধানের দায়িত্বও নিজ হাতে তুলে নেন। স্ট্যালিনের মৃত্যুর আগ পর্যন্ত রাশিয়া তার শ্বাসরূদ্ধকর একনায়কতন্ত্রে এবং সহিংসতায় অতিষ্ঠ হয়েছিল। স্ট্যালিন মস্তিস্কের জটিলতায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান।
১৯৮৪ সালের এ দিনে ভূটানের সাথে বাংলাদেশের বাণিজ্য ও সহযোগিতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

১৩৯৭ – অক্সফোর্ডের নতুন কলেজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপিত হয়।

১৫৫৮ – ইউরোপে প্রথম ধূমপানে তামাক ব্যবহার শুরু হয়।
১৬৮৪ – তুরস্কের বিরুদ্ধে রোম পোল্যান্ড ও ভেনিসের লিঞ্জলীগ গঠন।
১৭৭০ – বোস্টনে (যুক্তরাষ্ট্র) জনতার ওপর গুলি চালিয়ে ব্রিটিশ সৈন্যরা গণহত্যা ঘটায়।
১৭৯৩ – ফ্রান্সের সেনাবাহিনী অস্ট্রিয়ার কাছে পরাজিত হয়।
১৮২২ – ভবানীচরণ বন্দ্যোপাধ্যায় সম্পাদিত ‘সমাচার চন্দ্রিকা’ প্রকাশিত হয়।
১৮২৪ – অ্যাঙ্গোলা-বার্মা যুদ্ধ শুরু হয়।
১৮৩৩ – অবিভক্ত ভারতের প্রথম দুই মহিলা কাদিম্বিনী ও চন্দ্রমুখী বসু স্নাতক ডিগ্রী লাভ করেন।
১৮৩৬ – মেক্সিকো আলামো আক্রমণ করে।
১৮৯৬ – ইতালির প্রধানমন্ত্রী ক্রিসপি পদত্যাগ করেন।
১৮৯৭ – আমেরিকান নিগ্রো একাডেমী গঠিত হয়।
১৯১২ – স্প্যানিশ স্টিমারডুবিতে ৫০০ যাত্রীর প্রাণহানি ঘটে।
১৯১৮ – মস্কোকে রাশিয়ার রাজধানী করা হয়।
১৯৩৩ – জার্মানিতে নির্বাচনে এডলফ হিটলার ও তার নাৎসী পার্টির বহু আসনে জয়লাভ। তবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি।
১৯৬৬ – জাপানের ফুজি পর্বতে বৃটিশ এয়ার লাইন্সের বিমান বিধ্বস্ত হয়ে ১২৪ যাত্রী নিহত।
১৯৮৪ – ভূটানের সাথে বাংলাদেশের বাণিজ্য ও সহযোগিতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।
১৯৮৭ – সিলেটের ওসমানী জাদুঘর উদ্বোধন।
১৯৯৮ – ব্রিটেন ও উত্তর আয়ারল্যান্ড ‘উত্তর আয়ারল্যান্ড’ চুক্তিতে উপনীত হয়।
২০০১ – হজ্বের সময় মিনায় পদদলিত হয়ে ৩৫ হাজীর মৃত্যু।
২০০৭ – ঢাকা-ব্যাংকক-ঢাকা সেক্টরে ইলেকট্রনিক টিকেটিং (ই-টিকেটিং) পদ্ধতি চালু।
জন্মঃ
১১৩৩ – ইংল্যান্ডের রাজা দ্বিতীয় হেনরি।
১৬৯৬ – ভেনেশীয় চিত্রশিল্পী জোভান্নি বাতিস্তা তিয়েপোলো।
১৮১৭ – ইংরেজ পুরাতত্ববিদ স্যার হেনরি লেয়ার্ড
১৮৩০ – ফরাসি শরীরবিদ ও উদ্ভাবক এতিয়েন ফুল ম্যারে
১৮৮৭ – ব্রাজিলীয় সুরকার আতোর ভিলা-লোবোস।
১৮৯৮ – চীনা রাষ্ট্রনেতা চৌ এন-লাই।
১৯০৪ সাহিত্যিক অন্নদাশঙ্কর রায়।
মৃত্যুঃ
১৬২৫ – ইংল্যান্ডের রাজা প্রথম জেমস।
১৮১৫ – ‘প্রাণী চুম্বকত্বের’ (ম্যাসমেরিজম) প্রবক্তা ফ্রানৎস ম্যাসমের।
১৮২৭ – ইতালীর বিখ্যাত পদার্থ বিজ্ঞানী আলেসাঁন্দ্রো ভোল্টার ৮২ বছর বয়সে মারা যান।
১৮২৭ – বিখ্যাত ফরাসী গণিতবিদ পিয়েরে লাপ্লাস মারা যান।
১৯৫৩ – সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের নেতা ও স্বৈরশাসক জোসেফ স্ট্যালিন ৭৪ বছর বয়সে মারা যান।
১৯৬১ – নাট্যকার শচীন্দ্রনাথ সেনগুপ্ত।
১৯৬৬ – রুশ মহিলা কবি আন্না আখমা তোভা মৃত্যুবরণ করেন।
১৯৭৩ – অমূল্যকুমার দাশগুপ্ত, বাঙালি লেখক ও শিক্ষাবিদ।

১৯৯৬ – বিশ্বাস ঘাতক খন্দকার মোশতাক আহমেদ।

পড়া হয়েছে ৩৫৯ বার

( বি:দ্রঃ আপনভূবন ডটকম -এ প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও, কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। কপিরাইট © সকল সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আপনভূবন ডটকম )

আপনার ফেসবুক একাউন্ট ব্যবহার করে মতামত প্রদান করতে পারেনঃ