‘বাংলাদেশিদের সম্পদ বৃদ্ধি ১ লাখ ৬৩ হাজার কোটি টাকা’ গ্লোবাল ওয়েলথ রিপোর্ট-২০১৬

নভেম্বর ২৫, ২০১৬, ৮:২২ অপরাহ্ণ
এক বছরের ব্যবধানে বাংলাদেশি প্রাপ্তবয়স্কদের হাতে থাকা সম্পদের পরিমাণ বেড়েছে ১ লাখ ৬৩ হাজার ৮শ কোটি টাকা। মাথাপিছু সম্পদের পরিমাণ ১০৬৯ ডলার বা ৮৩ হাজার টাকার বেশি। বিভিন্ন দেশের জনসংখ্যা ও তাদের সম্পদের তথ্য নিয়ে এই প্রতিবেদন প্রকাশ করছে সুইজারল্যান্ড ভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ক্রেডিট সুইস রিসার্চ ইন্সটিটিউট।
প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপির পরিমাণ হলো ১৪০৪ মার্কিন ডলার। সবমিলিয়ে বাংলাদেশিদের সম্পদের আকার ২৫৮ বিলিয়ন ডলার। যা বিশ্ব সম্পদের মাত্র শুন্য দশমিক ১ভাগ। ২০০০ সালের শেষ দিকে বাংলাদেশের প্রাপ্তবয়স্কদের হাতে থাকা সম্পদের পরিমাণ ছিল মাত্র ৭৮ বিলিয়ন ডলার। গতবছর ২০১৫ সালে বাংলাদেশিদের সম্পদের পরিমাণ ছিল ২৩৭ বিলিয়ন ডলার। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে বাংলাদেশিদের প্রাপ্ত বয়স্কদের হাতে সম্পদের পরিমাণ বেড়েছে ২১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। টাকার অংকে ১ লাখ ৬৩ হাজার ৮শ কোটি টাকার সম্পদ বেড়েছে এক বছরের ব্যবধানে। চলতি বছরের মধ্য সময়ের তথ্য নিয়ে এই প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে। এক বছরের ব্যবধানে ডলারের বিপরীতে টাকার মান বেড়েছে শুন্য দশমিক ৮ ভাগ। এর পরেও বাংলাদেশিদের এ সম্পদ বেড়েছে।
প্রতিবেদনে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, বিশ্বে মাত্র শুন্য দশমিক ৭ ভাগ মানুষের হাতে রয়েছে বিশ্বের অর্ধেক সম্পদের মালিকানা। এই বৈষম্য সবচেয়ে বেশি রাশিয়ায়। মাত্র এক শতাংশ ধনীর হাতে রয়েছে রাশিয়ার ৭৪ দশমিক ৫ ভাগ সম্পদ। এর পরেই রয়েছে ভারত।
গ্লেবাল ওয়েলথ রিপোর্ট ২০১৬ অনুযায়ী ভারতের এক শতাংশ মানুষের হাতে রয়েছে দেশটির ৬০ ভাগ সম্পদ। ক্রেডিট সুইস রিসার্চ ইন্সটিটিউট প্রতিবছর এই প্রতিবেদন প্রকাশ করে আসছে। প্রতিবেদনে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, এশিয়ার দেশ থাইল্যান্ডের ৫৮ দশমিক ৪ ভাগ সম্পদ রয়েছে দেশটির মাত্র ১ ভাগ জনগোষ্ঠীর হাতে। ব্রাজিলের ৪৭ দশমিক ৯ ভাগ, চীনের ৪৩ দশমিক ৮ ভাগ সম্পদ রয়েছে দেশগুলোর এক শতাংশ মানুষের হাতে।
প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, বিশ্বের প্রায় দেশগুলোতে সম্পদের অসমতা একটি বড় বিষয় দেখা যাচ্ছে। বিশ্বের ১০ ভাগ মানুষের হাতে রয়েছে ৮৯ ভাগ সম্পদ। ভারত ও আফ্রিকার ৮০ ভাগ তরুণ জনগোষ্ঠী সম্পদের মালিকানার নিচের দিকে রয়েছে। গত এক বছরের ব্যবধানে বিশ্বে সবচেয়ে বেশি সম্পদ বেড়েছে জাপানের। এর পর যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানী, ফ্রান্স, কানাডা, নিউজিল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া ও ব্রাজিল। সম্পদ কমে যাওয়ার শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাজ্য, চীন, মেক্সিকো, রাশিয়া, আর্জেন্টিনা, সুইজারল্যান্ড ও ইটালি। মূলত ব্রেক্সিটের কারণে যুক্তরাজ্যের সম্পদের পরিমান কমেছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। যুক্তরাজ্যের সম্পদ কমেছে  প্রায় দেড় লাখ কোটি ডলার। গত বছর ২৭টি দেশ ১০ হাজার কোটি ডলার বা তার বেশি সম্পদ হারালেও এবার সেটি ৮ এ নেমে এসেছে।
এতে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, উত্তর আমেরিকা ও ইউরোপে সারা বিশ্বের প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের মাত্র ১৮ শতাংশের বসবাস। তবে এই দুটি অঞ্চলেই রয়ে গেছে বিশ্বের মোট সম্পদের ৬৫ শতাংশ। চীন ও ভারত ছাড়া এশিয়া প্যাসিফিকে বিশ্বের ২৪ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ক থাকলেও তাদের রয়েছে বৈশ্বিক সম্পদের মাত্র ২১ শতাংশ। চীনে বিশ্বের ২১ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্কের বসবাস। তবে সম্পদ মাত্র ৯ শতাংশ। চলতি বছর ১০ লাখ ডলারের বেশি সম্পদ আছে বা মিলিয়নিয়ারের সংখ্যা ৩ কোটি ২৯ লাখ ৩১ হাজা। সবচেয়ে বেশি ১ কোটি ৩৫ লাখ ৫৪ হাজার মিলিয়নিয়ার আছে যুক্তরাষ্ট্রে।
ইত্তেফাক

পড়া হয়েছে ২৫৭৯ বার

( বি:দ্রঃ আপনভূবন ডটকম -এ প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও, কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। কপিরাইট © সকল সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আপনভূবন ডটকম )

আপনার ফেসবুক একাউন্ট ব্যবহার করে মতামত প্রদান করতে পারেনঃ